July 9, 2024

পুজোতে ছুটিতে ভ্রমণ এর উপযুক্ত কিছু জায়গা

travel place in india

দুর্গাপূজা তো প্রায় এসে গেল আর পূজার ছুটির ঘোরার প্ল্যানটা তো এখন থেকে করতে হবে তাই না । আজ আমরা আপনাদের পুজর ছুটিতে ঘোরার জন্য বেস কিছু ভাল জাইগার কথা বলবো।

• উত্তরাখণ্ড

উত্তরাখণ্ডের কোণে লুকিয়ে আছে এক অপরূপ সুন্দর উত্তরাঞ্চলের রাজ্য যার নৈসর্গিক দৃশ্য মনমুগ্ধকর । আছে উঁচু উঁচু পর্বতমালা, ঝরনা্‌, হিমপ্রবাহ, নির্মল রথ, পবিত্র মন্দির ও ট্র্যাকিংয়ের পথ । যোগ আধ্যাত্মিকতা সুস্থতা ও রোমাঞ্চকর নানা খেলাধুলার জন্য খুবই পরিচিত । বর্ষার মৌসুমে এখানে দেখতে পাবে সতেজ গাছপালা , নিয়মিত বর্ষা ধারা । এটা হল উত্তরাখান্ড যা শক্তিপীঠের জন্য বিখ্যাত। বর্ষার পরে নবরাত্রি সময় ঈশ্বরের দৈবীক ক্ষমতা অনুভব করা যায় এখানে।

 মুসৌরি, ধলন্তি, কৌশানি্‌ , ফুলের উপত্যাকা , মুন্সিয়ারি হল এমন কিছু যা বর্ষার মৌসুমে ভ্রমণ করতে খুবই ভালো লাগে. 

• আসাম

আসাম হলো লাল নদী ও নীল পর্বতের রাজ্য। যা সাত ভগিনী রাজ্যের প্রবেশদ্বার। আসামে ভ্রমণ করলে কাজিরাঙ্গা বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য না দেখলে সবই অপূর্ণ থেকে যায় , অপূর্ণ থেকে যায় একশৃঙ্গ গন্ডার অদেখা থাকলে । এছাড়াও আধ্যাত্বিকতার দিক থেকে প্রতিবছর লক্ষ্য লক্ষ্য মানুষ কামাখ্যা মন্দিরে পুজো দিতে আসেন। বৃহত্তম নদী দ্বীপ মাজুলী হলো আসামের গর্ব , এর মনমুগ্ধকর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং নিস্তব্ধতা এতটাই আকর্ষণীয় যে এখানে না গিয়ে থাকা যায় না । এছাড়াও আছে ডিব্রুগড় এর প্রাকৃতিক চা বাগান যা পৃথিবীতে অত্যন্ত বিখ্যাত , এছাড়াও আছে সুয়ালকুচি রেশমি নগর যাকে বলা হয় আসামের ম্যানচেস্টার। বিশ্বের অন্যতম ভালো গুণমানের রেশম উৎপাদিত হয় এখানে ।

তেলেঙ্গানা

তেলেঙ্গানা ভারতবর্ষের ২৯ তম এবং নবীনতম রাজ্য। যা স্বীকৃতি প্রাপ্ত হয়েছিলজা ২ জুন ২০১৪ তে ।  পর্যটকদের জন্য রত্নসম্ভার , দক্ষিণ ভারতের অন্যতম বৃহৎ রাজ্য তেলেঙ্গানা বহুসংস্কৃতি বহুবর্ণের সমাজ বিশিষ্ট যা আতিথিয়তা জন্য খ্যাত । এই রাজ্যের রাজধানী হায়দ্রাবাদ হল গোটা ভারতের পঞ্চম বৃহত্তম রাজ্য যা ইতিহ্য ও আধুনিকতার জন্য সমৃদ্ধ।

রাজস্থান

রাজস্থান এখানে আছে ঐতিহাসিক স্পর্শ। চতুর্দিকে রাজকীয় দুর্গ , প্রাসাদ যাতে আছেন নানাবিধ সংস্কৃতের সমাহার, সুস্বাদু খাবার প্রাণবন্ত তাঁত শিল্প এবং সম্পূর্ণ দেশীয় লোকসংগীত, ছবির মতো সুন্দর মরুভূমির প্রেক্ষাপট। রাজস্থানের পর্যটন গন্তব্যের সবচেয়ে জনপ্রিয় গন্তব্য স্থল । বহুবার এই রাজ্যে চিত্রায়িত হয়েছে বহু চলচ্চিত্র এবং পালেস অন হুইলস বিলাসবহুল অভয়ারণ্য এবং রোমাঞ্চকর ক্রীড়া. চিরকাল পর্যটকদের পছন্দের ১.৭৫ মিলিয়ন পর্যটক শুধুমাত্র ২০১৮ তে এসেছেন । প্রতিদিন আরও বেশি পর্যটক আকৃষ্ট হয়ে আসছেন উদয়পুর লেক ফেস্টিভেল এবং পুশ্বরের ভক্তি উৎসবে।

মধ্যপ্রদেশ

এখানে আছে বন্য প্রাণীদের জন্য অভয়ারণ্য, যা আপনাকে প্রাকৃতিক পরিবেশে বন্যপ্রাণীদের জীবনযাত্রা দেখার সুযোগ করে দেবে। মধ্যপ্রদেশের জঙ্গল বিশেষ করে কানহা ন্যাশনাল পার্ক, বান্ধবগড় ন্যাশনাল পার্ক,পেঞ্ছ ন্যাশনাল পার্ক ইত্যাদি ভারতের সব জায়গা থেকে পর্যটকদের নিয়ে আসে বিশেষ করে বাঘ  দেখার জন্য। তাই সঠিকভাবে মধ্যপ্রদেশ কে বলা হয় টাইগার স্টেট বা ব্যাঘ্র রাজ্য। এখানে নানা প্রজাতির হরিণ দেখা যায় যার মধ্যে আছে বিরাট বড় শিংযুক্ত ডিয়ার। ভারতের এই কেন্দ্রস্থলে ভ্রমণ করে মধ্যপ্রদেশের জঙ্গল দর্শন করুন এবং উপভোগ করুন প্রকৃতির দান।

গোয়া

সাঙ্গুয়েম তালুকা জলপ্রপাত হোক বা ভগবান মহাবীর ওয়াইল্ডলাইফ স্যাংচুয়ারি অংশ, কেবল বর্ষার সময় নয় সারা বছর ধরে এ সৌন্দর্য একই রকম। সবুজের ঘনত্ব এবং ১০০০ ফুট থেকে জলপ্রপাতের ঝাঁপিয়ে পড়ার দৃশ্য মহিমান্বিত করে। গাড়ি নিয়ে বা ট্রেনে কুলিন রেলওয়ে স্টেশনে গিয়ে সেখান থেকে জলপ্রপাত পর্যন্ত গাড়ি ভাড়া পাওয়া যায় কিন্তু জলপ্রপাতের নিচে পৌঁছাতে গেলে হাটতে হবেই কিন্তু সেই দৃশ্য অবিস্মরণীয়।

• ওড়িশা

কলিঙ্গ স্থাপত্যের ঘোরপ্যাঁচে বিস্ময়কর অনুভূতি, রথযাত্রার সঙ্গে নিজের আধ্যাত্বিক সংযোগ, বৃষ্টির সময় উপজাতি সং কোরাপুট এর পাহাড়ের নিঃশ্বাস নেওয়া উড়িষ্যার খাবারগুলোর বিষের স্বাদ চেখে দেখা চিন্তাই আরাবারি ডলফিনদের সঙ্গে লুকোচুরি খেলা পিপলি ওরুগু রাজপুরের শিল্পীদের উপস্থিতির অভিজ্ঞতা. পদক্ষেপে ভারতের গুপ্ত রহস্যের উদ্ঘাটন

•  অন্ধপ্রদেশ 

অন্ধপ্রদেশ শেরপুর বগুড়া জেলায় অবস্থিত ডিজে রাজা মাহিন্দ্র গ্রাম থেকে আনুমানিক 80 কিলোমিটার দূরত্বে সহযোগে সহযোগে পৌঁছানো যায় এখানে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপরূপ মনমুগ্ধকর শান্ত পরিবেশ নিস্তব্ধতা সকলের স্বপ্নে ভ্রমন স্থান হাউসবোট এর মাধ্যমে আশেপাশের নৈসর্গিক সৌন্দর্য দেখতে পাবেন অন্যতম সেরা উর্বর স্থান চমৎকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য হাওয়াই 2013 নারকেল গাছ মন কেড়ে নেয় সবুজের সতেজতা ও শৈল্পিক কারুকার্যমন্ডিত মন্দির সমৃদ্ধ এছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ হলো সুস্বাদু খাবার টাটকা সামুদ্রিক মাছ ছবির মত বিন্দি গ্রাম বিখ্যাত নারকেল গাছের সারি ও গ্রামাঞ্চলের রেজাল্ট দেখে সমুদ্রতট ও লাইটহাউস হলো অন্যতম পর্যটক আকর্ষণ. ‘

• কাশ্মীর

জম্মু ও কাশ্মীর আধ্যাত্বিকতার তুমি যেখানে বার্ষিক তীর্থযাত্রী সংখ্যা গোটা রাজ্যে জনসংখ্যার চেয়ে বেশি জম্মুতে দেখতে পাওয়া যায় নানাবিধ প্রাকৃতিক দৃশ্য হিমালয় পর্বত থেকে অরণ্য সমৃদ্ধ উপত্যাকা জলাভূমি ও নদী তৈরি হচ্ছে পর্বত বেরিয়ে আসা গলে যাওয়া বরফ থেকে আছে সুন্দর রাজকীয় পর্বত বিলাসবহুল চিনা দীর্ঘকায় পপুলার এইজন্য বলা হয় পৃথিবীর বুকে স্বর্গ বরফে মোড়া পর্বতচূড়া স্কি করার জন্য আদর্শ আছে ট্রাকিং পর্বতারোহণের ব্যবস্থা

 

দার্জিলিং-এর কিছু অজানা পর্যটন স্থান

• গুজরাট

গুজরাট পরিচিত তার গন্তব্য এবং অবস্থানের বৈচিত্রের জন্য কেউ নেই গুজরাটে বিস্তৃত সমুদ্রতল থেকে পাহাড় পাহাড় থেকে চোখ ধাঁধানো রাজপ্রাসাদ ওয়াইল্ডলাইফ স্যাংচুয়ারি থেকে পুরাতাত্ত্বিক স্থানের মাহাত্ম্য নতুন সংযোজন বিশ্বের উচ্চতম মূর্তি 182 মিটার. স্ট্যাচু অফ ইউনিটি সরদার বল্লভ ভাই প্যাটেলের ঐক্যবদ্ধ ভারতের স্থপতির স্মরণে তৈরি করা সরদার বল্লভ ভাই প্যাটেলের জীবনের উপর চিত্রাঙ্কিত একটি নতুন অভিজ্ঞতা আনবেই রিসার্চ সেন্টারে কাজ করে সরদারের পছন্দসই বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নতি সাধনের উপর এই দূরদৃষ্টি সম্পন্ন নেতা সম্পর্কে জানতে অবশ্যই যেতে হবে বিশ্বের উচ্চতম স্ট্যাচু টির একটি

• কর্ণাটক

কর্ণাটক বৈচিত্রের আরেক নাম ঐতিহ্যও সংস্কৃতি প্রকৃতির সমুদ্রতট বন্যপ্রাণী বৈচিত্রের মিশর সর্বত্র এছাড়াও পাহাড় জলপ্রপাত তীর্থস্থান এবং 300 কোটি কিলোমিটার দীর্ঘ সমুদ্র লক্ষণীয় পর্যটকদের মধ্যক বৈচিত্রে সঞ্চার করে

• পাঞ্জাব

ভারতের উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত পাঞ্জাব সাহসিকতা বিরক্ত আক্রমণ লুটপাটের ইতিহাসের সাক্ষ্য বহন করে পঞ্চনদীর উপস্থিতি. আপনাকে নিয়ে যাবে রাজপ্রাসাদ কেল্লার অভ্যন্তরে তাদের সংস্কৃতি বিস্তীর্ণ সবুজের সমাহার নানা খাদ্যের সমাহার এবং স্থানীয়দের অতিথি সৎকার আপনাকে মুগ্ধ করবে এই রাজসিক হিন্দু-বৌদ্ধ সুখের মত ধর্মীয় আন্দোলন দেখেছে এখানে সকলের জন্যই কিছু না কিছু রয়েছে।

• লাক্ষাদ্বীপ

আরব সাগরের উপর অবস্থিত লাক্ষাদ্বীপ রয়েছে কোরালপ্রাচীরগুলো উপহ্রদ স্বচ্ছ জল সব মিলিয়ে যেন তৈরি হয়েছে অসাধারণ রহস্য লাক্ষাদ্বীপ আপনার মন এবং আত্মাকে অভিভূত করে দেবে বর্তমান ব্যস্ততার মধ্যে এমন স্বর্গীয় প্রাকৃতিক বিষয় একপ্রকার মুক্তি বলা যেতে পারে ঝারখান্ড এই স্থানটি রাঁচির 156 কিলোমিটার পশ্চিমে লাতেহার জেলার প্রায় 3622 ফুট উচ্চতায় অবস্থিত এই অপরূপ সৌন্দর্যময় পরিবেশে আপনার মন আন

Facebook Comments Box
BengaliEnglishHindi